• রোববার   ২৯ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৫ ১৪২৯

  • || ২৬ শাওয়াল ১৪৪৩

ঝালকাঠি আজকাল
ব্রেকিং:
পৃথিবীর ৮০টি দেশে আমরা সফটওয়্যার রপ্তানি করছি: মোস্তাফা জব্বার খোমেনি স্টাইলে বিপ্লবের দুঃস্বপ্ন দেখছে বিএনপি: কাদের নেতিবাচক রাজনীতিই বিএনপিকে গ্রাস করেছে: কাদের দারিদ্র্য দূরীকরণ প্রধানমন্ত্রীর অন্যতম লক্ষ্য: প্রাণিসম্পদমন্ত্রী প্রচারণার কৌশল হিসেবে বিএনপি সরকারকে দায়ী করে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পদ্মাসেতুর উদ্বোধনে আমন্ত্রণ পাবেন বিএনপি নেতারা: কাদের পাটখাত আবার পুনরুজ্জীবিত হয়েছে: পাটমন্ত্রী মানুষের মুখে হাসি দেখে বিএনপি’র বুকে ব্যথা হয়: ওবায়দুল কাদের নির্বাচনকে প্রহসনে রূপান্তরের কোনো ইচ্ছা আমাদের নেই: সিইসি বিএনপি ষড়যন্ত্র বন্ধ করলেই দেশের অগ্রগতির প্রতিবন্ধকতা দূর হবে: কাদের

যে ইবাদত দারিদ্র্য ও গোনাহ নিশ্চিহ্ন করে দেয়

ঝালকাঠি আজকাল

প্রকাশিত: ১৪ মে ২০২২  

আল্লাহ সামর্থ্যবান লোকের ওপর হজ ফরজ করেছেন। কোরআনে এরশাদ হয়েছে, 

إِنَّ أَوَّلَ بَيْتٍ وُضِعَ لِلنَّاسِ لَلَّذِي بِبَكَّةَ مُبَارَكًا وَهُدًى لِّلْعَالَمِينَ

‘নিঃসন্দেহে সর্বপ্রথম ঘর যা মানুষের জন্যে নির্ধারিত হয়েছে, সেটাই হচ্ছে এ ঘর, যা মক্কায় অবস্থিত এবং সারা জাহানের মানুষের জন্য হেদায়েত ও বরকতময়।’ (সূরা: আলে-ইমরান, আয়াত: ৯৬)।

আল্লাহ তায়ালা এর পরে আরো বলেন,

فِيهِ آيَاتٌ بَيِّـنَاتٌ مَّقَامُ إِبْرَاهِيمَ وَمَن دَخَلَهُ كَانَ آمِنًا وَلِلّهِ عَلَى النَّاسِ حِجُّ الْبَيْتِ مَنِ اسْتَطَاعَ إِلَيْهِ سَبِيلاً وَمَن كَفَرَ فَإِنَّ الله غَنِيٌّ عَنِ الْعَالَمِينَ

‘এতে রয়েছে মকামে ইব্রাহিমের মত প্রকৃষ্ট নিদর্শন। আর যে, লোক এর ভেতরে প্রবেশ করেছে, সে নিরাপত্তা লাভ করেছে। আর এ ঘরের হজ করা হলো মানুষের ওপর আল্লাহর প্রাপ্য; যে লোকের সামর্থ রয়েছে এ পর্যন্ত পৌছার। আর যে লোক তা মানে না। আল্লাহ সারা বিশ্বের কোনো কিছুরই পরোয়া করেন না।’ (সূরা: আলে-ইমরান, আয়াত : ৯৭)।

হজরত আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা.) থেকে বর্ণিত, হজরত রাসূল (সা.) এরশাদ করেছেন, তোমরা হজ ও ওমরা পরপর সঙ্গে সঙ্গে আদায় কর, কেননা এ দুটি কাজ দারিদ্র্য ও গোনাহ নিশ্চিহ্ন করে দেয়। যেমন রেতি লোহার মরিচা ও স্বর্ণ-রৌপ্যের জঞ্জাল দূর করে দেয়। আর কবুল হওয়া হজের সাওয়াব জান্নাত ছাড়া আর কিছুই নয়। (তিরমিজি : ৩/৮১০)।

ফরজ হজ আরবি জিলহজ মাসে পালন করতে হয়। ওমরা হজ বছরের যেকোনো সময় পালন করা যায়। হজের মর্যাদা কেউ লিখে কিংবা বর্ণনা করে শেষ করতে পারবে না। হজের সময় সংক্ষিপ্ত কিন্তু ইহার মর্যাদা ব্যাপক। হজ পালনের সঙ্গে সঙ্গে হজ পালনকারী বেগোনাহ হয়ে যান। তার আমলনামা থেকে গোনাহ ধুয়ে মুছে সাফ হয়ে যায়।

হজরত আবু হোরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, হজরত রাসূল (সা.) এরশাদ করেছেন, যে অশ্লীল কথা বা গোনাহের কাজে জড়িত না হয়ে আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের লক্ষ্যে হজ করল, সে সদ্য ভূমিষ্ঠ শিশুর মতো নিষ্পাপ হয়ে ফিরে এলো। (বোখারি : ১৪৩১)।

দুনিয়াতে যারা নেক আমল করবে, তাদের ওপর আল্লাহতায়ালা পরকালে সন্তুষ্ট থাকবেন। কিন্তু দুনিয়ার ভোগ-বিলাশ এবং নফসের খায়েশ মিঠাতে গিয়ে কেউ কেউ মন্দ কাজে জড়িয়ে পড়েন। মন্দ কাজে জড়িয়ে পড়ার ফলে আমলনামায় গোনাহের পরিমাণ বৃদ্ধি পেতে থাকে। ফলে আল্লাহর রহমত বান্দা থেকে দূরে চলে যায়। তখনই বান্দা নানা রকমের দুঃখ কষ্টে হাবুডুবু খেতে থাকে।

হজের আমলের বরকতে বান্দার আমলনামা ধবধবে সাদা কাপড়ের মতো হয়ে যায়। হজরত আবু হোরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, হজরত রাসূল (সা.) এরশাদ করেছেন, যে ব্যক্তি এ গৃহের (বায়তুল্লাহর) হজ আদায় করল, সে স্ত্রী সহবাস করল না (হজ পালনকালীন সময়) এবং কোনো অন্যায় কাজও করল না, সে এমনভাবে প্রত্যাবর্তন করবে যেমন মাতৃগর্ভ থেকে সদ্যজাত শিশু (নিষ্পাপ হয়ে) ভূমিষ্ঠ হলো (বোখারি : ১৭০২)।

নেক কাজের নিয়ত করলে তা দ্রুত করা বুদ্ধিমানের কাজ। হজ করার ইচ্ছা থাকলে দ্রুত আদায় করে নেয়া উত্তম। হজরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত হজরত রাসূল (সা.) এরশাদ করেছেন, হজের ইচ্ছা পোষণকারী যেন তাড়াতাড়ি তা সমর্পণ করে। কেননা সে অসুস্থ হয়ে পড়তে পারে, তার উট হারিয়ে যেতে পারে বা তার ইচ্ছা বাধাগ্রস্ত হতে পারে। (মুসনাদে আহমাদ : ৫/৩৩৪০)।

হজরত ইবনে ওমর (রা.) থেকে বর্ণিত, হজরত রাসূল (সা.) বলেছেন, ‘কোনো হাজীর সঙ্গে তোমার দেখা হলে তাকে সালাম করবে, করমর্দন করবে এবং তাকে তোমার জন্য আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাইতে অনুরোধ জানাবে তার গৃহে প্রবেশের আগে। কেননা হাজী হলেন গোনাহমুক্ত পবিত্র ব্যক্তি।’ (মেশকাত : ২৪২৩)। 

মহান রাব্বুল আলামিন আল্লাহ তায়ালা মুসলিমি উম্মাহর প্রত্যেককে জীবনে একবার হলেও হজ করার তৌফিক দান করুক। আল্লাহুম্মা আমিন।

ঝালকাঠি আজকাল