• শনিবার ২৫ মে ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১০ ১৪৩১

  • || ১৬ জ্বিলকদ ১৪৪৫

ঝালকাঠি আজকাল

আলু আমদানির খবরেই কমেছে দাম

ঝালকাঠি আজকাল

প্রকাশিত: ১ নভেম্বর ২০২৩  

আমদানির খবরেই হিলির বাজারে কমেছে আলুর দাম। ঊর্ধ্বমুখী বাজারে দাম সহনীয় পর্যায়ে রাখতেই ভারত থেকে আলু আমদানির সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। মঙ্গলবার (৩১ অক্টোবর) সন্ধ্যা পর্যন্ত হিলির ১২ জন আমদানিকারক প্রতিষ্ঠানকে আইপি দেয়া হয়েছে।

আমদানির খবরে হিলির বাজারে আলুর দাম প্রতি কেজিতে কমেছে পাঁচ টাকা। আর বস্তা প্রতি কমেছে ২৫০ থেকে ৩০০ টাকা পর্যন্ত। গতকাল কাটিলাল জাতের আলু ৫০ টাকা বিক্রি হলেও সেটা আজকে বিক্রি হচ্ছে ৪৫ টাকা। একইভাবে গুটি জাতের পাকড়ী আলু কেজিতে সাত টাকা কমে বিক্রি হচ্ছে ৫২ টাকা।

হিলি বাজারের আড়তদার মনিরুল ইসলাম  বলেন, বেশ কিছু দিন ধরে আলুর বাজারে অস্থিরতা বিরাজ করছে। তবে ভারত থেকে আলু আসার খবরে আজকেই প্রথম আলুর দাম কেজিতে কমেছে পাঁচ থেকে ছয় টাকা। আর বস্তায় কমেছে ২৫০ থেকে ৩০০ টাকা পর্যন্ত। প্রশ্ন ছিল দামটা কারা কমালো! কেন কমলো!

মনিরুল বলেন, আমরা স্টোর থেকে আলু ক্রয় করি সেখানেই দাম কমেছে। কম দামে কিনেছি তাই আজকে কম দামে বিক্রি করছি। বেশি কমের পিছনে তাদের কোন হাত নাই।
 

কথা হয় বাজারে সবজি বাজার করতে আসা হায়দার আলীর সঙ্গে। তিনি বলেন, বাজারে প্রত্যেকটা জিনিসের দাম ঊর্ধ্বমুখী থাকলেও সবজির দাম কিছুটা নাগালের মধ্যে। আলুর দামটা অনেক বেশি ছিল। দুইদিন আগেও দেশীয় পাকড়ী জাতের আলু ৬০ টাকা কিনেছিলাম, আজকে সেটা বাহান্ন টাকায় কিনলাম।

সাধারণ ভোক্তারা বলছেন, প্রতি বছর সরকার নানাভাবেই দ্রব্যমূল্যর দাম সহনীয় পর্যায়ে রাখতে কাজ করলেও কিছু অসাধু ব্যবসায়ীদের কারণে সরকারি পরিকল্পনা সফল হয় না। তাই আলু আমদানির পর অবশ্যই সাধারণ ভোক্তার হাতে পোঁছাই এবিষয়ে  নিশ্চিত করতে হবে সরকারকে। তাছাড়া কোন লাভই হবে না আলু  আমদানি করে। লাভবান হবে সিন্ডিকেট ও মজুদাররাই।

ব্যাংক থেকে এলসি পাওয়া মাত্রই আলু আমদানি করা হবে বলে জানান আমদানিকারক ব্যবসায়ীরা।

এদিকে আলু আমদানিতে সব ধরনের সহযোগিতার কথায় বলছেন উদ্ভিদ সংঘ নিরোধের উপ-সহকারী মোহাম্মদ ইউসুফ আলী। তিনি বলেন, গতকাল সন্ধ্যা পর্যন্ত হিলির ১২ জন আমদানিকারক ১৪ হাজার মেট্রিক টন আলু আমদানির অনুমোদন পেয়েছে। তাছাড়া আরও বেশ কিছু অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে।

ঝালকাঠি আজকাল