• শনিবার   ২৫ জুন ২০২২ ||

  • আষাঢ় ১১ ১৪২৯

  • || ২৪ জ্বিলকদ ১৪৪৩

ঝালকাঠি আজকাল
ব্রেকিং:
১০০ বছরেও কোনও ক্ষতি হবে না পদ্মা সেতুর: মন্ত্রিপরিষদ সচিব বাঙালি জাতির সমস্ত অর্জন আওয়ামী লীগের হাত ধরে এসেছে: তথ্যমন্ত্রী সংক্রমণ বাড়ছে, শিগগির বুস্টার ডোজ নিন: স্বাস্থ্যমন্ত্রী স্বাস্থ্য ব্যবস্থাকে আরো শক্তিশালী করতে হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী জুরাইনের ঘটনায় যার যতটুকু অপরাধ, তার বিচার হবে: আপিল বিভাগ সেবা সহজ করতে নিরাপদ আইটি অবকাঠামো জরুরি: প্রতিমন্ত্রী মাঙ্কিপক্স সন্দেহে তুরস্কের এক নাগরিক হাসপাতালে বাংলাদেশ ব্লকচেইন প্রযুক্তিতে বিশ্বকে নেতৃত্ব দেবে: পরিকল্পনামন্ত্রী সীতাকুণ্ডে বিস্ফোরণ নাশকতা কি না, খতিয়ে দেখা হবে: তথ্যমন্ত্রী আগুনে নিহত শ্রমিকদের ২ লাখ টাকা দেওয়া হবে: শ্রম প্রতিমন্ত্রী

গজলডোবা ব্যারাজ খুলে দেয়ায় তিস্তা নদীতে ঢল

ঝালকাঠি আজকাল

প্রকাশিত: ২৯ মে ২০২২  

পাহাড়ি ঢল সামলাতে ভারত জলপাইগুড়ির গজলডোবা ব্যারাজের গেট খুলে দিতেই হু হু করে তিস্তার ভাটিতে বাড়ছে পানি। ব্যারাজ পয়েন্টে বিপৎসীমার কাছাকাছি পানি উঠে যাওয়ায় চরাঞ্চলে তলিয়ে গেছে ফসল। নদী ভাঙন দেখা দিয়েছে রংপুর অঞ্চলে। পানি উন্নয়ন বোর্ড ও মাঠ প্রশাসন আগাম প্রস্তুতির কথা জানালেও আশ্বস্ত হতে পারছেন না তিস্তাপাড়ের মানুষ।

উজানে বৃষ্টির পাশাপাশি পাহাড়ি ঢলে বড় ধরনের বিপর্যয় ঠেকাতে ভারত গজলডোবা ব্যারাজের গেট খুলে দিয়েছে। তাতেই ভাটিতে রংপুর অঞ্চলে ধেয়ে আসছে পানি। লালমনিরহাটের তিস্তা ব্যারাজ পয়েন্টে পানি বইছে বিপৎসীমার মাত্র এক মিটার নিচে। এতে পাড় ভাঙার শঙ্কায় দিশেহারা নদীপাড়ের মানুষ।

গত বছরের ঢলে বিধ্বস্ত তিস্তা ব্যারাজের ফ্লাডবাইপাস এখনো মেরামত হয়নি। পুরোপুরি সংস্কার হয়নি ডিমলা ও গঙ্গাচড়ার বিভিন্ন স্থানে ফাটল সৃষ্টি হওয়া বন্যা নিয়ন্ত্রণ ও শহররক্ষা বাঁধ। যদিও সাধ্যমতো চেষ্টার কথা বলছে পানি উন্নয়ন বোর্ড।
 
রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আহসান হাবিব জানান, তিস্তার এ ভাঙন প্রতিরোধের  জন্য পানি উন্নয়ন বোর্ড থেকে দুই ধরনের পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। এর একটি স্বল্পমেয়াদি ও অন্যটি দীর্ঘমেয়াদি। এর বাইরে রংপুরে নদীভাঙনে ঝুঁকিপূর্ণ জায়গাগুলো চিহ্নিত করে আলাদা একটি প্রকল্পের প্রস্তাব দেয়া হয়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ডে। সেটাও সমীক্ষা পর্যায়ে রয়েছে। প্রতিকূল পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য আমরা জরুরি কিছু আপৎকালীন প্রতিরক্ষা কাজ বাস্তবায়ন করে থাকি। তাই এ পরিকল্পনার মাধ্যমে আশা করা যায়, প্রকল্প যদি বাস্তবায়ন হয় তাহলে তিস্তাকেন্দ্রিক মানুষের জীবনযাত্রার মান উন্নয়ন হবে এবং নদীভাঙন থেকে মানুষ রক্ষা পাবে।
 
যুগের পর যুগ বর্ষা এলেই বাঁচা-মরার লড়াই শুরু করে তিস্তাপাড়ের লাখ লাখ মানুষ। কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ রেজাউল করিম বলেন, বিপর্যয় রোধে তারাও আগাম প্রস্তুতি নেয়।
 
লালমনিরহাট, নীলফামারী ও রংপুরের চরাঞ্চলে শুষ্ক মৌসুমে পানির অভাবে খরায় পোড়া মাটিতে ফলানো ফসল ঘরে তোলার আগে এবারও ডুবেছে আচমকা ঢলের পানিতে। বিভিন্ন সূত্র বলছে, ঢল আর বন্যায় প্রতি বছর বাড়িঘর, জমি, সম্পদ হারিয়ে পথের ভিখেরি হয় রংপুর অঞ্চলের অন্তত ২০ হাজার পরিবার।

 

ঝালকাঠি আজকাল