• রোববার   ২৯ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৫ ১৪২৯

  • || ২৬ শাওয়াল ১৪৪৩

ঝালকাঠি আজকাল
ব্রেকিং:
পৃথিবীর ৮০টি দেশে আমরা সফটওয়্যার রপ্তানি করছি: মোস্তাফা জব্বার খোমেনি স্টাইলে বিপ্লবের দুঃস্বপ্ন দেখছে বিএনপি: কাদের নেতিবাচক রাজনীতিই বিএনপিকে গ্রাস করেছে: কাদের দারিদ্র্য দূরীকরণ প্রধানমন্ত্রীর অন্যতম লক্ষ্য: প্রাণিসম্পদমন্ত্রী প্রচারণার কৌশল হিসেবে বিএনপি সরকারকে দায়ী করে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পদ্মাসেতুর উদ্বোধনে আমন্ত্রণ পাবেন বিএনপি নেতারা: কাদের পাটখাত আবার পুনরুজ্জীবিত হয়েছে: পাটমন্ত্রী মানুষের মুখে হাসি দেখে বিএনপি’র বুকে ব্যথা হয়: ওবায়দুল কাদের নির্বাচনকে প্রহসনে রূপান্তরের কোনো ইচ্ছা আমাদের নেই: সিইসি বিএনপি ষড়যন্ত্র বন্ধ করলেই দেশের অগ্রগতির প্রতিবন্ধকতা দূর হবে: কাদের

ঝালকাঠিতে ভোক্তা অধিকারের অভিযানে জরিমানা ও তেল উদ্ধারে ক্রেতাদের সন্তুষ্টি

ঝালকাঠি আজকাল

প্রকাশিত: ১৪ মে ২০২২  

ঝালকাঠি প্রতিনিধি:
ভোজ্যতেলের বাজারে অস্থিরতা নিয়ন্ত্রনে প্রশাসনের তৎপরতায় সন্তুষ্টি প্রকাশ করছে ঝালকাঠির ক্রেতা সাধারণরা। ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের অভিযানে একের পর এক প্রকাশ পাচ্ছে মজুতদারির ঘটনা। অসাধু ব্যবসায়ীর গোপন আস্তানা থেকে বেরিয়ে আসছে হাজার হাজার লিটার ভোজ্যতেল।

ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর রোববার (৮মে) সকালে শহরের বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করেছেন। এদিন বেশী দামে সয়াবিন তৈল বিক্রির অভিযোগে তামাক পট্টি এলাকার ব্যাবসায়ী কালাচাঁদ বনিককে দুই হাজার টাকা, আক্কাস ষ্টোরকে ২ হাজার টাকা এবং হাসান ষ্টোরকে ৫ হাজার টাকা নগদ জরিমানা করা হয়।

পরের দিন সোমবার (৯মে) একই এলাকার মনোজ ষ্টোরে অভিযান চালায় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর। সেখান থেকে ৭০০ লিটার সয়াবিন তেল উদ্ধার করা হয়। বেশি লাভের আশায় তেল মজুদ করার অপরাধে মনোজ ষ্টোরের মালিককে ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এবং উদ্ধারকৃত তেল আসল দামে সাধারণ মানুষের মাঝে বিক্রি করা হয়।

একই অভিযান পরিচালনা করা হয় মঙ্গলবারেও (১০মে)।  এদিন বিকেলে অভিযান চালিয়ে অবৈধভাবে তেল মজুদ করার দায়ে ব্যবসায়ী গৌতম হালদারের দোকানে ৩০ হাজার টাকা ও বিমল রায় ষ্টোরে ২ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এদিন এক ব্যবসায়ীর গুদাম থেকে ১৩ হাজার ৭৪৬ লিটার সয়াবিন তেল উদ্ধার করা হয়।

এরপর বুধবার (১২ মে) দুপুরে অভিযান চালানো হয় নলছিটি উপজেলায়। সেখানে পুরাতন দাম টেম্পারিং করে নতুন দামের সিল মারার অভিযোগে বসুন্ধরা ফুডের ডিলার রিয়াজ হোসেন ৪০ হাজার টিকা এবং শাওন এগ্রোফুড নামের এক ডিলারকে সয়াবিন তেল বিক্রয়ের রশিদ সরবরাহ না করায় ১০ হাজার টাকা অর্থদন্ড দেয়া হয়।

ঝালকাঠিতে ১৩ হাজার ৭৪৬ লিটার সয়াবিন তেল উদ্ধার ছিলো এপর্যন্ত সবচেয়ে বড়ো চালান উদ্ধার। এ অভিযানে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন সাধারণ ক্রেতারা। মুক্তিযোদ্বা দুলাল সাহা বলেন, ঈদের আগে সব দোকানীরা তেল মজুত করেছে, সেই তেল গেলো কোথায়। যেভাবে প্রশাসন অভিযান চালাচ্ছে তাতে কৃত্রিম সংকট থাকবেনা বলেও জানান তিনি।

আরেক ক্রেতা উদয় শংকর বলেন, সরকারকে বেকায়দায় ফেলার উদ্দেশ্য অসাধু একটি মহল তেলের বাজারে অস্তিরতা সৃষ্টি করছে। প্রশাসনের অভিযানে আমরা সন্তুষ্ট। 

ব্যবসায়ী গৌতম হালদার বলেন, 'আমরা দক্ষিণ অঞ্চলের ভিভিন্ন জেলায় পাইকারী মাল বিক্রি করি, গুদামে যেটা তেল আছে এটা সব সময়ই থাকে বাড়তি মজুদ আমরা করিনা।'

তেল ব্যবসায়ী কালাচাদ বলেন, 'ভোক্তা অধিকার আমাদের কথা শুনতেই চায়না, তেল কিনে আনি বেশী দামে সে কারনেই বেশি দরে বিক্রি করতে হয়।'

বনিক সমিতির সভাপতি মনিরুল ইসলাম তালুকদার বলেন, কোনো অবস্থাতেই নির্ধারিত মূল্যের বেশিতে তেল বিক্রি করা যাবেনা। আমরা চেম্বার অব কমার্সের পক্ষ থেকে সকল ব্যবসায়ীদেরকে জানিয়ে দিয়েছি।  

ঝালকাঠি ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর এর সহকারী পরিচালক ইন্দ্রানি দাস বলেন, 'আমি ইতিমধ্যে বিভিন্ন কোম্পানির সোয়াবিন তেলের ডিলারের গুদাম পরিদর্শন করেছি। এবং ব্যবসায়ীদের সতর্ক করে বলেছি সয়াবিন তেলের বোতলের গায়ে লিখা দামের চেয়ে বেশি দাম নিলে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তেলের বাজার নিয়ন্ত্রনে অভিযান অব্যহত থাকবে বলেও জানান তিনি।

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ জোহর আলী বলেন, অসাধু ব্যবসায়ীরা যাতে ভোজ্য তেলের বাজারে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করতে না পারে সেদিকে নজরদারী রাখা হচ্ছে। কোথাও অসংগতি দেখা গেলে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট গিয়ে ভ্রাম্যমান আদালত বসিয়ে জরিমানা করা হচ্ছে।
 

ঝালকাঠি আজকাল