• বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪ ||

  • শ্রাবণ ২ ১৪৩১

  • || ১০ মুহররম ১৪৪৬

ঝালকাঠি আজকাল
ব্রেকিং:
মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ সম্মান দেখাতে হবে : প্রধানমন্ত্রী পবিত্র আশুরা মুসলিম উম্মার জন্য তাৎপর্যময় ও শোকের দিন আশুরার মর্মবাণী ধারণ করে সমাজে সত্য ও ন্যায় প্রতিষ্ঠার আহ্বান মুসলিম সম্প্রদায়ের উচিত গাজায় গণহত্যার বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হওয়া নিজেদের রাজাকার বলতে তাদের লজ্জাও করে না : প্রধানমন্ত্রী দুঃখ লাগছে, রোকেয়া হলের ছাত্রীরাও বলে তারা রাজাকার শেখ হাসিনার কারাবন্দি দিবস আজ ‘ফাঁস করা প্রশ্নে চাকরি পাওয়াদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে’ সমালোচনায় কিচ্ছু যায় আসে না, অভ্যস্ত হয়ে গেছি: প্রধানমন্ত্রী ‘চীন কিছু দেয়নি, ভারতের সঙ্গে গোলামি চুক্তি’ বলা মানসিক অসুস্থতা

প্রেম করে বিয়ে, হাসপাতালের গেটে স্বামীর মরদেহ রেখে পালালেন স্ত্রী

ঝালকাঠি আজকাল

প্রকাশিত: ৩ জুন ২০২৩  

প্রেম করে তিন বছর আগে শফিকুলের সঙ্গে বিয়ে হয় শ্যামলী খাতুনের। ভালোই চলছিল সংসার। প্রায় ১৫ দিন আগে স্বামীর ওপর অভিমান করে বাবার বাড়িতে চলে যান শ্যামলী। বৃহস্পতিবার দুপুরের দিকে শ্বশুরবাড়িতে আসেন শফিকুল ইসলাম। তবে সন্ধ্যা পর্যন্ত অনেক চেষ্টা করেও স্ত্রীর দেখা না পেয়ে অচেতন হয়ে পড়েন তিনি। পরে অ্যাম্বুলেন্সে করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান স্ত্রী। অ্যাম্বুলেন্স থেকে নামানোর সময় স্বামীর মৃত্যু হলে মরদেহ হাসপাতাল গেটে রেখেই পালিয়ে যান স্ত্রী।
শুক্রবার দুপুরে ময়নাতদন্ত শেষে শফিকুল ইসলামের মরদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। মৃত শফিকুল ইসলাম গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর উপজেলার বজরুক জামালপুর গ্রামের মুন্টু আকন্দের ছেলে।

জানা যায়, উপজেলার কাদাই গ্রামের আলতাব হোসেনের মেয়ে শ্যামলী খাতুন ঢাকায় একটি পোশাক কারখানায় চাকরি করেন। সেখানে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে তিন বছর আগে শফিকুলের সঙ্গে তার বিয়ে হয়। স্বামীর ওপর অভিমান করে ১৫ দিন আগে কাদাই গ্রামে বাবার বাড়িতে চলে আসেন শ্যামলী। বৃহস্পতিবার দুপুরের দিকে শ্বশুরবাড়িতে আসেন শফিকুল ইসলাম। তবে সন্ধ্যা পর্যন্ত অনেক চেষ্টা করেও স্ত্রীর সাক্ষাৎ পাননি তিনি।

একপর্যায়ে শ্বশুড়বাড়ির লোকজন শফিকুলকে হালকা আপ্যায়ন করান। এ সময় পানি পানি করে অচেতন হয়ে পড়েন তিনি। তখন স্বামীকে প্রথমে ধুনট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসেন শ্যামলী। শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে রাত ৯টার দিকে মৃত্যু হয় শফিকুল ইসলামের। মৃত্যুর পর শ্যামলী খাতুন ও তার পরিবারের লোকজন বাড়ি ছেড়ে পালিয়েছেন।

শফিকুল ইসলামের ভাই রফিকুল ইসলাম বলেন, শ্বশুরবাড়ির লোকজনের কাছে টাকা পান শফিকুল। সেই পাওনা টাকা চাইতে গেলে তারা আমার ভাইকে পানির সঙ্গে কৌশলে বিষাক্ত পদার্থ মিশিয়ে পান করিয়েছেন। এতে তিনি অসুস্থ হলে চিকিৎসার নামে হাসপাতালের গেটে ফেলে পালিয়েছেন তারা।

ধুনট থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মনিরুল ইসলাম বলেন, মারা যাওয়ার আগ পর্যন্ত শ্যামলী খাতুন তার স্বামীর সঙ্গে ছিল। কিন্ত মৃত্যুর পর মরদেহ হাসপাতালে ফেলে পালিয়ে যান তিনি। তবে ঘটনার পর পলাতক রয়েছে শ্যামলী ও তার পরিবারের লোকজন। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি।

ঝালকাঠি আজকাল