মঙ্গলবার   ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আশ্বিন ১ ১৪২৬   ১৭ মুহররম ১৪৪১

ঝালকাঠি আজকাল
১১

ইতিহাসের এই দিনে

শিশুসাহিত্যিক সুকুমার রায়ের প্রয়াণ

প্রকাশিত: ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

ইতিহাস আজীবন কথা বলে। ইতিহাস মানুষকে ভাবায়, তাড়িত করে। প্রতিদিনের উল্লেখযোগ্য ঘটনা কালক্রমে রূপ নেয় ইতিহাসে। সেসব ঘটনাই ইতিহাসে স্থান পায়, যা কিছু ভালো, যা কিছু প্রথম, যা কিছু মানবসভ্যতার আশীর্বাদ-অভিশাপ।

তাই ইতিহাসের দিনপঞ্জি মানুষের কাছে সব সময় গুরুত্ব বহন করে। এ গুরুত্বের কথা মাথায় রেখে পাঠকদের জন্য নিয়মিত আয়োজন ‘ইতিহাসের এই দিন’।

১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার। ২৬ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ। ১০ মহররম ১৪৪০ হিজরি। এক নজরে দেখে নিন ইতিহাসের এ দিনে ঘটে যাওয়া উল্লেখযোগ্য ঘটনা, বিশিষ্টজনের জন্ম-মৃত্যুদিনসহ গুরুত্বপূর্ণ আরও কিছু বিষয়।

ঘটনা
১৮৯৮- অস্ট্রিয়ার সম্রাজ্ঞী এলিজাবেথকে হত্যা করা হয়।
১৯১৯- প্রথম বিশ্বযুদ্ধ শেষে মিত্র ও সহযোগী শক্তিদের সঙ্গে অস্ট্রিয়ার চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।
১৯৩৯- দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে জার্মানির বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করে কানাডা। যোগ দেয় যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ড।
১৯৬৭- জিব্রাল্টারের জনগণ স্পেনের অংশ হওয়ার বিরুদ্ধে এবং যুক্তরাজ্যের অধীনেই থাকার পক্ষে ভোট দেয়।
১৯৭৪- পর্তুগালের কাছ থেকে আফ্রিকান দেশ গিনিবিসাউ স্বাধীনতা লাভ করে।
১৯৯১- যুগোশ্লাভিয়া থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে স্বাধীনতা ঘোষণা করে মেসিডোনিয়া।
১৯৯৩- দীর্ঘ ৪৫ বছরের বৈরিতার অবসান ঘটিয়ে ইসরায়েল ও প্যালেস্টাইন লিবারেশন অর্গানাইজেশন (পিএলও) পরস্পরকে স্বীকৃতি দেয়।

জন্ম
১৭৭১- আফ্রিকা আবিষ্কারক স্কটিশ অভিযাত্রী মঙ্গু পার্ক।
১৮৭২- কিংবদন্তি ক্রিকেটার ও ভারতীয় রাজা কুমার রঞ্জিত সিং।
১৮৩৯- মার্কিন পদার্থবিজ্ঞানী ও দার্শনিক চার্লস স্যান্ডার্স পেয়ার্স।

মৃত্যু
১৭৯৭- ব্রিটিশ নারীবাদী লেখিকা মেরি ওলস্টোনক্রাফট।
১৮০৬- জার্মান ভাষাবিজ্ঞানী ইয়োহান ক্রিস্টফ আডেলুং।
১৯১৫- বাঙালি বিপ্লবী বাঘা যতীন।
১৯২৩- বাংলা ভাষার অন্যতম শ্রেষ্ঠ শিশুসাহিত্যিক সুকুমার রায়।

১৮৮৭ সালের ৩০ অক্টোবর কলকাতার এক ব্রাহ্ম পরিবারে জন্ম। ভারতীয় সাহিত্যে ‘ননসেন্স রাইমের’ প্রবর্তক। একাধারে লেখক, ছড়াকার, শিশুসাহিত্যিক, রম্যরচনাকার, প্রাবন্ধিক ও নাট্যকার। তিনি ছিলেন জনপ্রিয় শিশুসাহিত্যিক উপেন্দ্রকিশোর রায় চৌধুরীর সন্তান এবং তার পুত্র খ্যাতিমান চলচ্চিত্রকার সত্যজিৎ রায়। তার লেখা কবিতার বই আবোল তাবোল, গল্প হযবরল, গল্প সংকলন পাগলা দাশু এবং নাটক চলচ্চিত্তচঞ্চরী বিশ্বসাহিত্যে সর্বযুগের সেরা ‘ননসেন্স’ ধরনের ব্যাঙ্গাত্মক শিশুসাহিত্যের অন্যতম বলে মনে করা হয়। মৃত্যুর বহু বছর পরও তিনি বাংলা সাহিত্যের জনপ্রিয়তম শিশুসাহিত্যিকদের একজন।