বৃহস্পতিবার   ২১ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ৬ ১৪২৬   ২৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

ঝালকাঠি আজকাল
৫৮

মেসির গোলে জিতল বার্সেলোনা

প্রকাশিত: ২৪ অক্টোবর ২০১৯  

চ্যাম্পিয়নস লিগের ইতিহাসে এই প্থম দুই দলের মুখোমুখি লড়াই। দুই দলের শক্তির পার্থক্যও অনেক। ঘরের মাঠে সেই ইউরোপীয় ফুটবলের পরাশক্তি বার্সেলোনাকে রীতিমত নাচিয়ে ছাড়লো তুলনামূলক ‘অখ্যাত’ স্লাভিয়া প্রাগ। তবে ভাগ্য দলটির সহায় হয়নি। কারণ ম্যাচে ঠিক সময়ে জ্বলে উঠেছেন মেসি-সুয়ারেস। আর ইতিহাস গড়েছেন মেসি। দুজনের দুই গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্তের ঝলকেই প্রথম সাক্ষাতেই প্রাগ জিতে ফিরল কাতালান জায়ান্টরা।

ফেভারিট তকমা গায়ে জড়িয়ে খেলতে নামা বার্সাকে প্রথমার্ধে কঠিন সময় উপহার দিয়েছে প্রাগ। তবে দুই দলের মাঝে পার্থক্য গড়ে দিয়েছেন মেসি। খেলা শুরুর তৃতীয় মিনিটেই গোল করে বসেন বার্সা অধিনায়ক। আর্থারের সঙ্গে পাস-রিটার্ন পাস খেলে নিখুঁতভাবে বল জালে জড়িয়ে দেন আর্জেন্টাইন জাদুকর। এক গোল করেই অবশ্য ইতিহাসে নাম লিখিয়েছেন মেসি। চ্যাম্পিয়নস লিগের ইতিহাসে প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে টানা ১৫ মৌসুমে গোল করার কীর্তি এখন তার। সেই ২০০৫/৬ মৌসুম থেকেই টানা গোল করে যাচ্ছেন তিনি।

তবে গোল খেয়ে যেন জেগে উঠল প্রাগ। একের পর এক আক্রমণে জেরার্ড পিকে, নেলসন সেমেদোদের রীতিমত পরীক্ষায় ফেলে দেয়। বার্সার রক্ষণের দুর্বলতা আবিষ্কার করার পর থেকে টানা বেশ কয়েকটি আক্রমণ শানায় প্রাগ। বিশেষ করে পিটার অলিয়েঙ্কা এবং টমাস সসেকের দুটি শট ছিল দুর্দান্ত। তবে রক্ষণের ব্যর্থতার মাঝেও নিজের মাথা ঠাণ্ডা রেখেছেন বার্সা গোলরক্ষক মার্ক-আন্দ্রে টের-স্টেগান। গোটা মৌসুমেই দুর্দান্ত কিছু সেভ করে চমকে দেওয়া টের-স্টেগান এদিন যেন বার্সার রক্ষণের ত্রাতা হয়ে দেখা দিলেন। একক প্রচেষ্টায় প্রতিপক্ষের বেশ কিছু গোলের সুযোগ কেড়ে নিয়েছেন তিনি।

প্রথমার্ধে বার্সার গোলমুখে প্রাগ শট নিয়েছিল ১০টি, যার মধ্যে অন শট ছিল ৬টি। আর একই সময়ে গোলমুখে বার্সার শট ৬টি আর অন শট ৪টি। দুই দলের খেলার ধরন এতেই আন্দাজ করা যায়। তবে স্বাগতিকদের অপেক্ষা দ্বিতীয়ার্ধের প্রথম দিকেই শেষ হয়। মাসুপাস্টের দারুণভাবে বাড়িয়ে দেওয়া বলে টের-স্টেগানকে পরাস্ত করেন প্রাগ ডিফেন্ডার ইয়ান বোরিল।

তবে এগিয়ে যেতে মাত্র ৭ মিনিট সময় নেয় বার্সা। এবার মেসির অসাধারণ ফ্রি-কিকে বল পেয়ে যান সুয়ারেস, কিন্তু প্রথম চেষ্টায় বল ধরে রাখতে পারেননি তিনি। তবে বল লাফিয়ে সীমানা পার হওয়ার আগেই বাঁকানো এক শট নেন উরুগুইয়ান স্ট্রাইকার, বল জালে প্রবেশ করার আগে অলিয়েনঙ্কোর পা ছুঁয়ে যায়। ৭০তম মিনিটে মেসির বাড়ানো বল ডি-বক্সের মধ্যে সুবিধাজনক স্থানে পেয়েও লক্ষ্যভেদ করতে পারেননি সুয়ারেস। পাঁচ মিনিট পরে বুসকেতসের বাড়ানো বল নিয়ন্ত্রণে নিয়ে বাঁ পায়ের দারুণ শটে মেসির পথে ঠেলে দিয়েছিলেন আলবা। কিন্তু অল্পের জন্য সুযোগ হাত ছাড়া করেন মেসি। তবে শেষ পর্যন্ত ম্যাচ হাত ছাড়া হয়নি।

বার্সার হাতে নিজেদের দুর্গ হারালেও ৫ নভেম্বর বার্সার দুর্গ ক্যাম্প ন্যুয়ে হানা দেওয়ার সুযোগ পাচ্ছে প্রাগ। তবে পরের লড়াইয়ের আগে আপাতত পূর্ণ ৩ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপের শীর্ষস্থান দখল করে ঘরে ফিরতে পারছে বার্সেলোনা।

এদিকে রাতের আরেক ম্যাচে আয়াক্সকে ১-০ গোলে হারিয়ে গ্রুপ ‘এইচ’র শীর্ষস্থান দখল করেছে চেলসি।

এই বিভাগের আরো খবর