• সোমবার   ২৬ অক্টোবর ২০২০ ||

  • কার্তিক ১০ ১৪২৭

  • || ০৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

ঝালকাঠি আজকাল

বিবাহিত নারী বাবার বাড়ি গেলে যেভাবে নামাজ পড়বেন

ঝালকাঠি আজকাল

প্রকাশিত: ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০  

বিবাহিত নারীর জন্য স্থায়ী নিবাস কোনটি? বাবার বাড়ি নাকি স্বামীর বাড়ি? কেননা এর সঙ্গে নামাজ-রোজা পালনের বিষয়টি জড়িত। অধিকাংশ নারীই জানেন না, স্বামীর বাড়ি ও বাবার বাড়িতে নামাজ পড়ার হুকুম কী?

বিয়ের পর নারীর জন্য স্বামীর বাড়ি কিংবা স্বামীর সঙ্গে অবস্থানের স্থানই স্থায়ী। এ সময় নারীদের জন্য নামাজ আদায়ে রয়েছে ইসলামী শরিয়তে নির্ধারিত হুকুম।

বিবাহিত কোনো নারীর বাবার বাড়ি যদি স্বামীর বাড়ি বা স্বামীর অবস্থানের স্থান থেকে ৪৮ মাইল কিংবা সমপরিমাণ ৭৭.২৩ কিলোমিটার দূরে হয়। তবে ওই নারীর জন্য নামাজ পড়ার বিধান দুটি-

- বাবার বাড়ি ১৫ দিনের কম থাকলে

১৫ দিনের কম থাকার ইচ্ছা পোষণ করলে সে মুসাফির হিসেবে তখন জোহর, আসর এবং ইশার (চার রাকাআত বিশিষ্ট) ফরজ নামাজের পরিবর্তে দুই রাকাআত কসর নামাজ পড়বেন। তবে তারা যদি স্থানীয় ইমামের পেছনে জামাআতে নামাজ পড়েন তবে তারা ইমামের অনুসরণে পুরো নামাজই আদায় করবেন। আবার ইমাম যদি মুসাফির হয় তবে ইমামের সঙ্গেই নামাজ শেষ করবে। একা একা নামাজ পড়লে কসর পড়বেন।

- বাবার বাড়ি ১৫ দিনের বেশি থাকলে

আর যদি কোনো বিবাহিত নারী বাবার বাড়িতে ১৫ দিনের বেশি সময় থাকার নিয়তে যায় তবে তাকে স্থায়ী বাসিন্দাদের মতো পুরো নামাজ পড়তে হবে। অর্থাৎ চার রাকাআত বিশিষ্ট নামাজ কসর না করে পুরো নামাজ পড়বে। (বাহরুর রায়েক, রুদ্দুল মুহতার)

আর যদি কোনো নারীর বাবার বাড়ি আর স্বামীর বাড়ি বা কর্মস্থান নির্ধারিত ৪৮ মাইল বা ৭৭.২৩ কিলোমিটার দূরে না হয়ে আরও কাছে হয় তবে তাদের জন্য পুরো নামাজই পড়তে হবে। তা তাদের জন্য কসর হবে না।

ঝালকাঠি আজকাল