শনিবার   ২৩ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ৮ ১৪২৬   ২৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

ঝালকাঠি আজকাল
৩১১১

পায়ের তালুর ব্যাথা: প্লান্টার ফ্যাসাইটিস

প্রকাশিত: ৮ জানুয়ারি ২০১৯  

পা মানব শরীরের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। যার পা নেই সেই বুঝে পায়ের মর্মকথা। পায়ের গোড়ালিতে যেসব কারণে ব্যথা হয় তার মধ্যে প্লান্টার ফ্যাসাইটিস বেশি দায়ী। পায়ের পাতার নিচে যে প্লান্টার ফাসা নামে মোটা পর্দা রয়েছে, তাতে প্রদাহ হলে এই সমস্যা হয়। 

দৌড়োনো, চলাফেরা, যেকোনো ধরনের নৃত্য বা ফুটবলের মতো খেলাধুলোর সময় এই সমস্যাটির সৃষ্টি হয়।
গোড়ালির মোটা পর্দা বা ব্যান্ড আকৃতির কলায় নানা কারণেই প্রদাহ হতে পারে। সাধারণত ৪০ থেকে ৬০ বছর বয়সীদের বেশি হয় এই সমস্যা।পায়ের গোড়ালিতে ব্যথা হলে, বিশেষ করে সকালে ঘুম থেকে উঠে মেঝেতে পা ফেলতে সমস্যা হলে চিকিৎসকেরা তখন একে প্লান্টার ফ্যাসাইটিস বলে থাকেন।
এক জায়গায় অনেক ক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকলেও প্ল্যান্টার ফ্যাসিটিস হতে পারে। প্ল্যান্টার ফ্যাসিটিস-এর ফলে পায়ের গোড়ালিতে মারাত্মক যন্ত্রণা হয়। যাদের পায়ের তলা সমতল বা ওজন বেশি, তাদের মধ্যে এই রোগের ঝুঁকি বেশি। বয়ষ্ক মহিলাদের মধ্যেও প্ল্যান্টার ফ্যাসিটিস লক্ষ্য করা যায়।দীর্ঘদিন এই সমস্যা চলতে থাকলে পায়ের তলায় স্পার বা কাঁটার মতো হাড় বৃদ্ধি হয়। তাকে ডাক্তারি ভাষায় ক্যালকেনিয়াল স্পার বলা হয়।

→ প্ল্যান্টার ফ্যাসিটিস কী?

পায়ের নিচে একটি তুলতুলে (পেশি তন্তু) টিসু থাকে, যেটির নাম প্ল্যান্টার ফাসা। এই পেশি তন্তুগুলো গোড়ালির সঙ্গে পায়ের আঙুলগুলির সংযোগ স্থাপন করে রাখে। প্ল্যান্টার ফাসা  কোনো কারণে আক্রান্ত হলে বা কোন ককারনে প্রদাহের সৃষ্টি হলে যে সমস্যা তৈরি হয় তাকে প্ল্যান্টার ফ্যাসিটিস বলা হয়।

গোড়ালির হাড়ে ক্যালসিয়াম জমা হলে প্ল্যান্টার ফ্যাসিটিস হতে পারে। প্ল্যান্টার ফ্যাসিটিসে আক্রান্ত হলে সকাল বেলা ঘুম থেকে উঠে মাটিতে পা ফেলতে সমস্যা হতে পারে। তবে দীর্ঘ ক্ষণ পর তা ধীরে ধীরে স্বাভাবিক হয়ে যায়।

→ কেন হয় গোড়ালি ব্যথা?

গোড়ালির মোটা পর্দা বা ব্যান্ড আকৃতির কলায় নানা কারণেই প্রদাহ হতে পারে। সাধারণত ৪০ থেকে ৬০ বছর বয়সীদের বেশি হয় এই সমস্যা। এ ছাড়া কিছু বিষয় এর ঝুঁকি বাড়ায়। যেমন:

—দীর্ঘ সময় ধরে গোড়ালিতে চাপ পড়ে এমন কোনো কাজ এর ঝুঁকি বাড়ায়। যেমন ব্যালে নাচ, ম্যারাথন দৌড় বা অ্যারোবিক নাচ।
—অতি ওজন বা স্থূলতা পায়ের ওপর অতিরিক্ত ভরের সৃষ্টি করে। এই চাপ গিয়ে পড়ে পায়ের পাতার কলাসমূহের ওপর। ফলে শুরু হতে পারে ব্যথা।
—কারও কারও পায়ের বাঁক অস্বাভাবিক থাকে, তাঁরাও এই ঝুঁকির মধ্যে পড়েন।
—যাঁরা দিনের বেশির ভাগ সময় দাঁড়িয়ে কাজ করেন, যেমন কারখানার শ্রমিক, শিক্ষক—তাঁদেরও দীর্ঘ সময় গোড়ালিতে ওজন নেওয়ার কারণে প্রদাহ হতে পারে। খালি পায়ে শক্ত কাজ করাও ভালো নয়।

→ এবার জেনে নেওয়া যাক প্ল্যান্টার ফ্যাসিটিসের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে করণীয়:

১. সঠিক মাপের জুতো পরুন: সামান্য হিল বা ফিতে বাঁধা জুতো পরুন। হাই হিল বা একেবারে ফ্ল্যাট জুতো বা চটি পরবেন না। স্বাভাবিকভাবে পা পেতে হাঁটতে সমস্যা হয়, এমন কোনো জুতোই পরবেন না।

২. আইস প্যাক: দীর্ঘ ক্ষণ হাঁটা বা দাঁড়িয়ে থাকা থেকে বিরত থাকুন। স্বাভাবিক গতিতে হাঁটার চেষ্টা করুন। প্ল্যান্টার ফ্যাসিটিস-এর যন্ত্রণা শুরু হলে কিছু ক্ষণ বিশ্রাম করার পর, পায়ের তলায় আইস প্যাক দিয়ে মালিশ করুন অন্তত ১৫ মিনিট। উপকার পাবেন।

৩. আয়ুর্বেদিক প্রতিকার: আদা, রসুন, হলুদ বা সবুজ শাক-সবজি প্ল্যান্টার ফ্যাসিটিস-এর সমস্যা নিয়ন্ত্রণে আনতে সাহায্য করে।