• রোববার   ১২ জুলাই ২০২০ ||

  • আষাঢ় ২৮ ১৪২৭

  • || ২১ জ্বিলকদ ১৪৪১

ঝালকাঠি আজকাল
ব্রেকিং:
ভুয়া করোনা রিপোর্ট তৈরির মামলায় জেকেজির ডা. সাবরিনা গ্রেফতার করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৪৭ মৃত্যু, শনাক্ত ২৬৬৬ করোনা মোকাবেলায় শেখ হাসিনার রাজনৈতিক প্রজ্ঞা ও দূরদর্শিতা মজুরির চেয়ে বেশি টাকা ঘরে বসেই পাবেন পাটকল শ্রমিকরা-প্রধানমন্ত্রী রাতের অন্ধকারে যারা ক্ষমতায় এসেছিল তারাই দেশকে দুর্নীতি শিখিয়েছে করোনাভাইরাসে মারা গেলেন আরও ৪১ জন যে যাই হোক তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছি, নেব: প্রধানমন্ত্রী করোনা সংকট উত্তরণে এখনই জোরালো-সুসমন্বিত বৈশ্বিক সাড়া দরকার উত্তরার পর রিজেন্ট হাসপাতালের মিরপুর শাখাও সিলগালা ক্ষতি ও অর্থনৈতিক বিপর্যয়ের মধ্যে ভারসাম্যের কৌশল নিয়েছে সরকার
৮৩

নিজেরা দুর্নীতি করবেন না, কাউকে করতেও দিবেন না: দুদক চেয়ারম্যান

ঝালকাঠি আজকাল

প্রকাশিত: ২ ডিসেম্বর ২০১৯  

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ দুর্নীতি না করার জন্য কমিশনের কর্মকর্তাদের আহবান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘আপনাদের অঙ্গীকার হবে, নিজেরা দুর্নীতি করবেন না, কাউকে দুর্নীতি করতেও দিবেন না।’

সোমবার দুদক চেয়ারম্যান দুর্নীতি দমন কমিশনের প্রধান কার্যালয়ে ‘ট্রেনিং অন পাবলিক প্রকিউরমেন্ট এন্ড প্রাকটিসেস ফর এসিসি অফিসিয়াল’ শীর্ষক এক প্রশিক্ষণ কর্মশালার সনদ প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন।

প্রশিক্ষণলব্ধ জ্ঞান কাজে লাগানোর ওপর গুরুত্বারোপ করে ইকবাল মাহমুদ বলেন, ‘প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণকারীদের আজকের ফলাফল দেখে আমার মনে হচ্ছে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে কর্মকর্তাদের সক্ষমতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। আপনাদের কাছে আমার অনুরোধ থাকবে আপনারা সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত বিষয়ের ওপর নিবিড় প্রশিক্ষণ গ্রহণ করলেন। তাই যে কোন অভিযোগের তদন্তে এ প্রশিক্ষণলব্ধ জ্ঞানের সঠিক প্রয়োগ ঘটাতে হবে।’

তিনি বলেন, দেশের ক্রয় দুর্নীতিই সবচেয়ে আলোচিত বিষয়। প্রায়শই পত্র-পত্রিকায় ক্রয় দুর্নীতির খবর পাওয়া যায়। যা দেশের মানুষের মর্যাদাকে ভুলুণ্ঠিত করে। তাই এ প্রশিক্ষণের মাধ্যমে লব্ধ জ্ঞান অবশ্যই ক্রয় দুর্নীতির অনুসন্ধান বা তদন্তে প্রয়োগ করতে হবে। আর যদি এটার প্রয়োগ না ঘটে তাহলে জনগণের অর্থে পরচিালিত এসব প্রশিক্ষণ ভিত্তিহীন হয়ে যায়।

ইকবাল মাহমুদ বলেন, ‘আমি আগেও বলেছি-আজও বলছি ক্রয় সংক্রান্ত অনুসন্ধান বা তদন্তে আপনাদের না বুঝার কারণে যেন একটি লোকও হয়রানির শিকার না হন।’

তিনি বলেন, অসৎ উদ্দেশ্যে কেবল সরকারি অর্থ আত্মসাতের লক্ষ্যেই অনেক ক্রয় প্রস্তাবে উচ্চ দর প্রাক্কলন করেন বলে শোনা যায়। এগুলো বন্ধ করতেই হবে। জনগণের অর্থ কোনো ব্যক্তির নয়। কঠোর নজরদারি, নিখুঁত তদন্ত সর্বোপরি প্রসিকিউশনের মাধ্যমে এসব দুর্নীতি নিয়ন্ত্রণ করা হবে।
দুদক চেয়ারম্যান কর্মকর্তাদের উদ্দেশে বলেন, দুর্নীতি প্রমাণে প্রয়োজন মানসম্মত তদন্ত, নির্ভুল অভিযোগপত্র এবং সাক্ষ্য-প্রমাণ উপস্থাপন।

তিনি দুদকের মামলায় শতভাগ সাজা নিশ্চিত করার লক্ষ্যেই সকলকে কাজ করারও আহবান জানান।

অন্যান্যের মধ্যে সেন্ট্রাল প্রকিউরমেন্ট টেকনিক্যাল ইউনিটের মহাপরিচালক মো. আলী নূর, দুদকের প্রশিক্ষণ অনুবিভাগের মহাপরিচালক এ কে এম সোহেল, দুদক পরিচালক শেখ মো. ফানাফিল্যা, মো. মঞ্জুর মোরশেদ, সহকারী পরচিালক জাহিদ কালাম ও উপসহকারী পরিচালক আফনান জান্নাত কেয়া অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন। আলোচনা শেষে প্রশক্ষণার্থীদের মাঝে সনদ বিতরণ করা হয়।

ঝালকাঠি আজকাল
জাতীয় বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর