• মঙ্গলবার   ০২ জুন ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৯ ১৪২৭

  • || ১০ শাওয়াল ১৪৪১

ঝালকাঠি আজকাল
১৮৮

অবশেষে কার্যকরী ওষুধ, স্বস্তি বিজ্ঞানীদের

ঝালকাঠি আজকাল

প্রকাশিত: ৩০ এপ্রিল ২০২০  

 

করোনাভাইরাসের চিকিৎসায় ওষুধ খুঁজতে খুঁজতে প্রায় হয়রাণ বিজ্ঞানীরা। ঠিক এই সময় নতুন স্বপ্ন দেখাচ্ছেন আমেরিকান বিজ্ঞানীরা। এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে অ্যান্টিভাইরাল ওষুধ রেমসিডিসিভির কার্যকরি প্রভাব দেখা গিয়েছে। পরীক্ষামূলক প্রয়োগে এই সাফল্য মিলেছে বলে কার্যত দাবি করেছে হোয়াইট হাউজ।

করোনা ভাইরাসে আক্রান্তদের চিকিৎসার জন্য এখন পর্যন্ত কোনও অনুমোদিত ওষুধ নেই। বিশ্বের বিভিন্ন দেশ কার্যকরী ওষুধ নিয়ে গবেষণা করছে। আপাতত ম্যালেরিয়ার ওষুধ হাইড্রক্সিক্লোরোকুইনের উপরেই আস্থা রাখছে সমস্ত দেশ। এমন সময় করোনা চিকিৎসায় রেমসিডিসিভির সাফল্য ঘিরে মার্কিন দাবিতে আশার আলো দেখছে সারা বিশ্ব।

বুধবার আমেরিকার ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব অ্যালার্জি অ্যান্ড ইনফেকশিয়াস ডিজিজের প্রধান অ্যান্থনি ফৌসি হোয়াইট হাউসে সাংবাদিকদের বলেন, 'পরিসংখ্যান বলছে, করোনা আক্রান্তদের উপরে রেমসিডিসিভির প্রয়োগ করে দেখা গিয়েছে যে তারা দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠছেন।' এক্ষেত্রে অন্য ওষুধের ক্ষেত্রে রেমসিডিসিভির প্রয়োগে সুস্থতার হার ৩০ শতাংশ বেশি। মানব দেহের কোষের মধ্যে প্রবেশ করে ভাইরাসের বৃদ্ধি রুখে দেওয়ার মতো ক্ষমতা রেমডেসিভির আছে বলেও দাবি করেছেন মার্কিন শীর্ষ এই বিশেষজ্ঞ।

প্রাথমিকভাবে জানা গিয়েছে, এই মুহূর্তে রেমসিডিসিভির ফেস থ্রি ট্রায়াল হয়েছে। আমেরিকা, ইউরোপ, এশিয়ার মোট ৬৮টি স্থানে ১,০৬৩ জন করোনা আক্রান্তের শরীরে পরীক্ষামূলকভাবে রেমসিডিসিভির প্রয়োগ করা হয়েছে এবং এতে উল্লেখযোগ্য ইতিবাচক সাড়া পাওয়া গিয়েছে বলে দাবি। করোনা চিকিৎসায় রেমসিডিসিভির প্রয়োগের অনুমতি চেয়ে আবেদন করা হয়েছে।

আমেরিকার ন্যাশনাল ইন্সটিটিউটস অব হেলথও করোনার বেশ কয়েকটি ওষুধ নিয়ে পরীক্ষা চালাচ্ছে। এরই একটি হল রেমসিডিসিভির। গিলেড সায়েন্সেস-এর তৈরি এই ওষুধটি ইবোলার বিরুদ্ধে পরীক্ষা করা হয়েছিল। তবে সেভাবে সাড়া ফেলতে পারেনি। পরে বিভিন্ন পশুর শরীরে চালানো বেশ কয়েকটি পরীক্ষায় দেখা গিয়েছে কোভিড-১৯, সার্স ও মার্স-সহ ভাইরাস সংক্রান্ত সংক্রমণ প্রতিরোধ ও চিকিৎসায় এই ওষুধ কার্যকরী। 

ঝালকাঠি আজকাল
আন্তর্জাতিক বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর